প্রাথমিক চিকিৎসা

হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা

হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা হার্টের সমস্যা সম্পর্কে বিভিন্ন প্রকার জানতে হলে আপনার সমস্যার ধরণটি জানা প্রয়োজন। তবে হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা প্রক্রিয়া নিম্নলিখিত উদাহরণগুলির মধ্যে কয়েকটি হতে পারে:

স্বাস্থ্য পরীক্ষা: প্রথমে আপনার চিকিৎসক আপনার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবেন, যা মানসিক ও শারীরিক উভয়ই শামিল হতে পারে।

পরীক্ষার মধ্যে আপনার চিকিৎসক আপনার ব্যক্তিগত ইতিহাস, পরিবারে হার্টের সমস্যার উপস্থিতি এবং উচ্চমাত্রা বিশ্রাম, খাদ্য পদার্থ, ওজন এবং ব্যবহৃত ওষুধের বিবরণ সহ বিভিন্ন প্রশ্ন করতে পারেন।

শ্বাসকষ্ট: যদি আপনি শ্বাসকষ্টের সমস্যা অনুভব করেন, তবে চিকিৎসক আপনার শ্বাসকষ্ট পরীক্ষা করবেন। এর মধ্যে থাকতে পারে একটি ফিজিক্যাল পরীক্ষা,

একটি স্বাস্থ্য পরীক্ষা, একটি ফাংশনাল পরীক্ষা, এবং উইজার্ডগুলির ব্যবহার (উদাহরণস্বরূপ, ইলেকট্রোকার্ডিওগ্রাফি) যা আপনার হার্টের কাজ ও সমস্যার সম্পর্কে তথ্য প্রদান করতে পারে।

রক্ত পরীক্ষা: রক্ততের সমস্যা হতে পারে হার্টের সমস্যার একটি সূচক। চিকিৎসক আপনার রক্তর পরীক্ষা করবেন যাতে তারা আপনার ব্যক্তিগত রক্ত মাপতে পারেন।

এটি উচ্চমাত্রা ও নিম্নমাত্রা রক্ত জন্য একটি পরিক্ষা হতে পারে এবং সাধারণত অন্যান্য বিশেষ পরীক্ষা যেমন রক্ত পরীক্ষা ও ইলেকট্রোকার্ডিওগ্রাফির সাথে যুক্ত হতে পারে।

আর্দ্রতা বা শ্বাসকষ্ট: হার্টের সমস্যা সম্পর্কে শ্বাসকষ্ট অনুভব করতে পারেন। এটি অন্যান্য সমস্যার জন্যও প্রকাশ করা হতে পারে, তাই চিকিৎসক আপনার শ্বাসকষ্ট পরীক্ষা করবেন যাতে তারা আপনার শ্বাসকষ্ট সম্পর্কিত কোনো সমস্যা নির্ণয় করতে পারেন।

মঞ্চস্থলের সমর্থন: হার্টের সমস্যা সম্পর্কে সঠিক তথ্য ও নির্দেশনা পেতে হলে চিকিৎসক এবং হার্ট স্পেশালিস্টের মধ্যে মঞ্চস্থলের সমর্থন পেতে হবে।

এতে পাশাপাশি, চিকিৎসক আপনাকে উচ্চমাত্রা ও নিম্নমাত্রা আবহাওয়া পরিবর্তন, পরামর্শ, পুনরুদ্ধার আচরণ ও ওষুধ প্রস্তাব করতে পারেন।

সাধারণত, হার্টের সমস্যা সম্পর্কে সঠিক চিকিৎসা ও পরামর্শ পেতে হলে একজন হার্টের চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন।

হার্টের সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা

হার্ট এটাক এর প্রাথমিক চিকিৎসা 

হার্ট অ্যাটাক হলো একটি জীবনবিপদের স্থিতি, যেখানে হৃদয়ের কোনো অংশে রক্তনিস্সারের বিচ্ছিন্নতা ঘটে যা হার্টের আর্টারির একটি ব্লকের ফলে হয়। যদি একটি ব্লক পূর্বে ব্যক্তির হৃদয়ের অঞ্চলের রক্তপ্রবাহ বন্ধ করে তবে অঞ্চলের হৃদয় মাংশপেশীগুলি ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং হৃদয়ের অপরিবর্তনশীল অংশে মৃত হয়ে যায়।

একটি হার্ট অ্যাটাকের প্রাথমিক চিকিৎসা অন্তর্ভুক্ত করে নিম্নলিখিত কয়েকটি পদক্ষেপ:

১.সবচেয়ে প্রাথমিক ধাপ হলো ত্বরিতভাবে একজন চিকিৎসকের সাহায্য করা। সরাসরি মেডিকেল সেবার জন্য একটি আম্বুলেন্স কল করুন বা হাসপাতালে নিজেকে যাত্রা করুন।

২.একজন চিকিৎসক দ্বারা প্রদর্শন করা হার্ট একগুচ্ছ দিয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের সাথে কানেক্ট করা যেতে পারে। এই প্রক্রিয়াটি সাধারণত হার্ট সেন্টারে বা কার্ডিয়ালজিস্টের কাছে হয়।

৩.যদি আপনি একটি নাপসন্ন ব্যক্তির পাশে থাকেন যিনি হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ প্রদর্শন করছেন, তবে তাকে সাহায্য করার জন্য আরও কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন:

▶️সেগুলি সহজভাষায় জ্ঞাত করান।

▶️সাময়িক পদ্ধতিতে সাহায্য করুন যেমন বসানো, লেটানো বা ঘাড়ে দেওয়া।

▶️নিয়মিত হাঁটার কাজে সাহায্য করুন।

৪.হাসপাতালে চিকিত্সা শুরু হলে, চিকিৎসক আপনার হার্ট অ্যাটাকের উপসর্গ এবং আপনার সাম্যগ্যতা মূল্যায়ন করবেন। এরপরে সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি নির্ধারণ করা হবে।

৫.হার্ট অ্যাটাকের চিকিৎসা সাধারণত মেডিকেশন, চেস্ট পেইন নির্ণয় এবং হার্ট কেয়ার প্রদানের মতো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা উপস্থাপন করে। কিছু মামলায় অতিরিক্ত চিকিৎসা প্রয়োজন হতে পারে, যেমন থ্রমবোলাইসিস, পাস করা চুম্বকীয় বা করনালী নির্বাচন।

এই চিকিৎসা পদ্ধতিগুলি আপনার চিকিত্সকের মাধ্যমে সঠিকভাবে নির্ধারণ করা উচিত এবং উচ্চ জ্ঞানের বিষয়ে। অনুগ্রহ করে স্বল্প সময়েই চিকিত্সা প্রদানের জন্য নিকটতম হাসপাতালে যান।

হার্ট এটাকের প্রাথমিক চিকিৎসা | মিনি হার্ট এটাক সিম্পটমস

মিনি হার্ট এটাক, যা আরও হার্ট অ্যাটাক বা অ্যাংজাইনা পেশা হতে পারে, হলো হার্ট মাসপেশিতে নির্মিত খুন্ডকাল সংক্রমণের একটি আক্রান্ত রোগ পরিস্থিতি।

মিনি হার্ট এটাক সাধারণত সামান্য অবস্থান নেই এবং কমপক্ষে ১৫ মিনিট বা তারও কমকাল সময়ের জন্য সংগ্রহ করতে পারে।

মিনি হার্ট এটাকের কিছু সাধারণ লক্ষণগুলি নিম্নরূপ:

  • ১.স্থায়ী বা শরীরের বিভিন্ন অংশে অনুবর্তিত ব্যাথা বা চাপ।
  • ২.বিছানাতে বসানো নিকটস্থ হতে হালকা হওয়া।
  • ৩.শ্বাসকষ্ট বা হাঁচি বা শ্বাসনে অস্বস্তি বা সমস্যা।
  • ৪.অনিয়মিত হৃদয়ধ্বনি বা কম্পন। মাথায় ভারি বা চুমু হওয়া।
  • ৫.জ্বালা বা ব্যাথা স্বাদের মনে হওয়া।
  • ৬.চুম্বক অবস্থা বা বিমস্ত হতে হওয়া।
  • ৭.পর্যবেক্ষণ করলে নির্মমভাবে মনে হয় না কিন্তু জ্বলা বা ব্যাথা স্বাদের মনে হয়।

আপনি যদি মিনি হার্ট এটাকের কোনও সম্ভাব্য সিম্পটমস অনুভব করেন, তাহলে আপনাকে সঙ্গে বিবেচনা করা উচিত যে এটা ভীতির কারণ হতে পারে এবং এটি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে।

আপনি সত্যিকারের মিনি হার্ট এটাকের ধারণকারী হলে, দ্রুত চিকিৎসা সাধারণত জরুরী হয় যাতে আপনি একটি পূর্ণমানে একটি হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থা পরিণতি থেকে বাঁচতে পারেন।

সাধারণত প্রথম সাহায্য পেতে অত্যন্ত গুরুত্ব রাখা হয়, যেমন প্রাথমিক চিকিৎসা ও অ্যাম্বুলেন্সের কাছে সংযোগ।

হার্ট এটাক এর লক্ষণ

হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণগুলি যা হতে পারে, তা নিম্নলিখিত হতে পারে:

সংকটের অনুভূতি: হার্ট এটাকের সাথে সাথে সংকটের অনুভূতি অনুভব করা হতে পারে। এটা আপনাকে একটা ভারী অভিজ্ঞতা দিতে পারে যেমন চেস্টে বাড়তি চাপ বা বাধা বা ভারী অনুভূতি।

সামান্য শ্বাসকষ্ট: হার্ট এটাকের সময় সামান্য বা মাঝারি শ্বাসকষ্ট অনুভব করা হতে পারে। এটা মানুষের ব্যবহৃত ক্ষমতা বা শ্বাস নিয়ন্ত্রণের সাথে সংক্রমিত হতে পারে।

ব্যাথা: হার্ট এটাকের সময় চেস্টে ব্যথা বা ব্যাথা অনুভব করা হতে পারে, যা মানুষের ব্যবহৃত ক্ষমতা বা মাথা পেশীগুলির সাথে সংক্রমিত হতে পারে। এটা সাধারণত বাম বা ডান বাহু, স্কুল্ডার, গলা, বুকের নিচের অংশ বা কোন অংশে অনুভব করা যেতে পারে।

শ্বাস ছাড়ার সমস্যা: হার্ট এটাক সাধারণত শ্বাস ছাড়ার সমস্যা সৃষ্টি করে। এটি শ্বাসকষ্ট, হাঁচি, ফাঁপ, ফুঁ রূপে অনুভব করা হতে পারে।

জ্বালা বা বুক বিস্ফোরণের মতো সমস্যা: কয়েকজনের ক্ষেত্রে হার্ট এটাক সমস্যার সাথে জ্বালা বা বুক বিস্ফোরণের মতো অনুভব হতে পারে।

মূখের মাধ্যমে অস্বস্তি: কিছু মানুষে হার্ট এটাক হলে তারা মূখ মাধ্যমে অস্বস্তি বা বোধ করতে পারে। এটা কারণে তারা মুখ মুখুশি বা আর্ধবিচলিত হয়ে পড়তে পারে।

বমি করার ইচ্ছা: কিছু মানুষে হার্ট এটাক হলে তাদের মধ্যে বমি করার ইচ্ছা জাগতে পারে।

পেটে ব্যথা: হার্ট এটাকের সময় কিছু মানুষে পেটে ব্যথা অনুভব হতে পারে। এটা হলে তার পেটের অংশে ব্যথা বা তিক্ততা অনুভব করতে পারে।

হার্ট এটাক

শ্বাসনালীর সমস্যা: হার্ট এটাকের কিছু লোকের শ্বাসনালীর সমস্যা হতে পারে। তারা শ্বাসকষ্ট, দূর্বল শ্বাস, শ্বাসলগ্ন ব্যাথা ইত্যাদি অনুভব করতে পারে।

চোখের সমস্যা: কিছু মানুষে হার্ট এটাক হলে তাদের চোখে সমস্যা দেখতে পারে। এটা অনুভব করতে পারেন যেমন দুর্বল চোখ, আলোর প্রতিবিম্বে পরিবর্তন, চোখে দুর্বলতা ইত্যাদি।

এই লক্ষণগুলি মানুষের মধ্যে ভিন্নভাবে প্রকাশিত হতে পারে এবং হার্ট এটাক লক্ষণগুলি আরও বড়ভাবে বা কম সমস্যাসঙ্গত হতে পারে।

একজন যখন হার্ট এটাকের সম্মুখীন হয়, সাধারণত বিপদজনক অবস্থার মধ্যে অবস্থান করে যেতে পারেন, তাই তা পর্যবেক্ষণ করা ও শ্বাসশক্তির জন্য তার নিকটবর্তী হাসপাতালে অবস্থান করা উচিত। সম্পর্কিত চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলা উচিত।

হার্ট এটাক কখন হয় 

হার্ট এটাক হলে হৃদয়ের মাংশপেশির একটি অংশ পুরোপুরি অকার্যকর হয়ে যায় এবং হৃদয়ের সঙ্ক্রামক পাথরের মত থেকে

রক্ত পাস করতে বন্ধ হয়ে যায়। এটি মৃত্যুসম্ভব হতে পারে যদি সময়েই চিকিৎসা না প্রদান করা হয়।

হার্ট এটাক হয়ে পড়ার কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই। এটি অপ্রত্যাশিত ঘটনা হতে পারে এবং সাধারণত সাধারণ ব্যক্তির জীবনের কোনো কারণ হয়ে থাকে।

তবে, হার্ট এটাক এর কিছু জনপ্রিয় লক্ষণ মাঝে মাঝে প্রকাশ করে। এগুলির মধ্যে থাকতে পারে:

  • ১.মাংশপেশিতে ব্যথা বা চাপ বোধ।
  • ২.মাথায় ব্যথা অনুভব।
  • ৩.শ্বাসকষ্ট বা শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা।
  • ৪.বুকের ফাঁপ বা তাড়াতাড়ি হৃদয় ধাক্কা বা অনিয়মিত হৃদয়ধারণ অনুভব।
  • ৫.বমি  হতে পারে।

এই লক্ষণগুলির প্রকাশ না পাওয়া যায় এবং হার্ট এটাক কারোকারি অবস্থাতেও সংঘাত করতে পারে।

যদি আপনি অথবা কারো অবস্থান এই ধরনের লক্ষণগুলি অনুভব করেন, তবে সময়মতো চিকিৎসা প্রদানের জন্য ত্বরান্বিতভাবে কল করতে হবে একটি চিকিৎসকের সাথে। এটি জীবনসম্পন্ন সাপেক্ষে বিষয়টি বিবেচনা করে নেওয়া যায়।

হার্ট এটাক কিভাবে হয়

হার্ট এটাক একটি জীবনঘাতক মেডিকেল অবস্থা যা হার্টের পাম্প কর্মচারীদের অনিয়ন্ত্রিত রোধক যেমন ধমনির মতো অবস্থা। এটি একটি মূলত একটি ক্ষুদ্র পাম্পের নিঃশ্বাসের স্থানে সংঘটিত হয় যার ফলে হার্টের যত্নশীল অংশের আপেক্ষিক সরবরাহ কম হয়ে যায়। এটা হার্টের সংকটসহকারের অন্যতম কারণ।

হার্ট এটাক ঘটার জন্যে সাধারণত নিম্নলিখিত পথ অনুসরণ করে:

১.কোলেস্টেরল প্রমাণ বা অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের জন্য ঝুঁকি: কোলেস্টেরল হাই বা ডায়াবেটিসের রোগীদের হার্টে সমস্যা হতে পারে।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ বা অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের কারণে আর্টেরির পাম্প দেওয়া বন্ধ হতে পারে এবং হার্ট এটাক সৃষ্টি করতে পারে।

.ধূমপান: ধূমপান করার পর নিকোটিন হার্টের আর্টেরি মানে ধমনির পাম্পের বিচরণে পরিণত হয়ে যায়, যা হার্টের

পাম্পের নিঃশ্বাসের উপায় পরিবর্তন করে। এটি হার্ট এটাকের ঝুঁকিতে উঠানোর জন্য বাড়ানো সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে।

৩.মোটামুটি বেশি খাওয়া: অতিরিক্ত পেশীর প্রতিস্থাপনের জন্য প্রয়োজন হলেও অতিরিক্ত পানির ওজন বা অতিরিক্ত

ফুলির কারণে হার্টের পাম্প কাজ করতে বেশি চায়, যা হার্ট এটাকের ঝুঁকিতে বাড়ানোর জন্য বাড়িয়ে যেতে পারে।

৪.এলাকায় জীবনযাপনের পরিবেশ: বিশেষত শুকনো রাস্তা হতে পারে যেমন সড়কে বিভিন্ন ধরনের কারবার,

যাতায়াতের অস্বচ্ছতা, ধূমপান এবং দূষণ মধ্যে। এই ধরনের পরিবেশে থাকার কারণে হার্ট এটাকের ঝুঁকিতে বেশি প্রভাবিত হতে পারেন।

৫.পরিবারে হার্ট রোগ: যদি আপনার পরিবারে হার্ট রোগের প্রাকৃতিক ইতিহাস থাকে, তবে আপনি এই রোগে ঝুঁকিতে বেশি

ভাগি হতে পারেন।

৬.বয়স: বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে হার্ট এটাকের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। বয়স বাড়ানোর সাথে সাথে হার্টের সঙ্ক্রান্ত কিছু পরিবর্তন

ঘটে যা হার্ট এটাকের ঝুঁকিতে সাহায্য করে।

এগুলি হার্ট এটাক ঘটার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ উপায় হতে পারেন। একটি হার্ট এটাক সনাক্ত করার সময় শীতল পানি প্রয়োজন

হতে পারে এবং তাদের সাহায্যে আপনি একজন চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করার জন্য উপযুক্ত হলেই ভাল।

হার্ট এটাক থেকে বাচার উপায়

হার্ট অ্যাটাক হলো হার্টের মাংশপেশিতে বা হৃদয় মাংশপেশিতে সমস্যা থাকার ফলে হৃদয়ের অঙ্গগুলির প্রবাহ ব্যাধিত হয়ে যায়।

এর ফলে হৃদয়ের অংশ ব্যথিত হয়ে যায় এবং সাধারণত হৃদয়ঘাত এর নামেই চিহ্নিত হয়। হার্ট অ্যাটাকের পশ্চাতে অংশ যায় হৃদয়ের অংশ

এবং যেটা এই ব্যাধিটি উৎপন্ন করে সেখানে চিকনির গুঁজক হয়ে যায় যাতে হৃদয়ের সাধারণ কাজের সামগ্রিক দক্ষতা কমে যায়।

একটি স্বাস্থ্যবিধির সাথে একইসাথে মহাবিধির ব্যবহার বা সমস্যায় গ্রস্ত হলে চিকিৎসার প্রয়োজন হয় পাত্র হয় আদমস্ত্র এর।

যদিও হার্ট অ্যাটাক অপ্রত্যাশিত হয়, কিন্তু আপনি কিছু উপায় অনুসরণ করে এর ঝুঁকি কমিয়ে আনতে পারেন। এই

উপায়গুলি নিম্নলিখিত হতে পারে:

স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন: নিয়মিত শারীরিক ও মানসিক ব্যায়াম, সম্মতভাবে খাওয়া-দাওয়া, যথাযথ পরিমাপে নিয়মিত

বিশ্রাম এবং নিরামিষক জীবনযাপন প্রভৃতি মেনে চলা হার্ট অ্যাটাক ঝুঁকি কমানোর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

শরীরের ওজন পরিচ্যুতি: শরীরের মানসিক ও শারীরিক চাপ ও ব্যথা কমিয়ে আনতে শরীরের পরিমাণ এবং ওজন নিয়ন্ত্রণ

করা জরুরি। অতিরিক্ত ওজন হলে সেটি হার্টের লোড বাড়াতে পারে এবং হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

নিয়মিত চেকআপ: আপনার ডাক্তারের পরামর্শ মেনে চলুন এবং নিয়মিতভাবে চেকআপ করুন। আপনার হৃদয়ের স্বাস্থ্য

মনিটর করা এবং নিরাপত্তামূলক কোনো বিশেষ চিকিৎসায় সময় বিবেচনা করে নিয়ন্ত্রিত করা হয়ে থাকবে।

জ্ঞানবান হন: হার্ট অ্যাটাক সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান অর্জন করুন এবং কোনো পরিবর্তনসহ সেগুলি পালন করুন যা আপনার

হৃদয়ের স্বাস্থ্যকে বাড়ানো সহজ করবে।

ঔষধ ব্যবহার: যদি আপনার ডাক্তার পরামর্শ দেন তবে ঔষধ ব্যবহার করুন যা হার্ট অ্যাটাক এর ঝুঁকি কমিয়ে আনতে সহায়তা করবে।

আপনার হার্টের স্বাস্থ্য বিষয়ে যদি আপনি কোনও চিন্তা বা চিন্তা থাকেন, তবে সময়ে সার্বিক চিকিৎসার জন্য দ্রুত একজন

চিকিৎসকে দেখানো জরুরি।

হার্ট এটাক রোগীর খাবার

হার্ট অ্যাটাক রোগীদের জন্য সঠিক খাবার খাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একটি পরামর্শ দেওয়ার জন্য আপনি বিশেষজ্ঞ

ডায়েটিশিয়ানের সাথে মিলন করতে পারেন।

তবে, একটি সাধারণ নির্দেশিকা নিম্নে দেওয়া হলো:

১.প্রতিটি খাবারে সুস্থ প্রোটিন উপস্থিত থাকতে হবে, যেমন মাংস, মাছ, ডাল, মুগডাল, ছানা, পানির মাছ, সোয়াবিন, পানির ছানা ইত্যাদি।

২.প্রোটিন উপস্থিত খাবার পরিমাণ কম করতে হবে এবং প্রধানত মাংসের মাত্রা হতে হবে সীমাবদ্ধ। প্রধানত প্রোটিন

উপস্থিত মাংসের পরিমাণ হতে পারে মাঝারি হিসাবে হলেও ডেইলি খাওয়া উচিত নয়।

৩.পুষ্টিকর ফল ও সবজি দৈনিক খাবারের অংশ হতে হবে। আপনি পর্যাপ্ত পরিমাণে ফল এবং সবজি খাওয়ার চেষ্টা করতে

পারেন। তবে, আপনার ডায়েটিশিয়ান সর্বদাই আপনার পরিস্থিতি এবং স্বাস্থ্যস্থিতি ভিত্তিক পরামর্শ দেবেন।

৪.সাধারণত পরিমাণগুলো সম্পর্কে, যেমন নিরামিষ ও প্রোটিনের পরিমাণ। ডায়েটিশিয়ান আপনাকে আপনার দৈনিক

প্রোটিন ও নিরামিষের পরিমাণের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ খাবারের সাথে সাম্প্রতিক অবস্থা দেখানোর চেষ্টা করবেন।

৫.তেলের ব্যবহারকে সীমাবদ্ধ রাখা উচিত। সরিষার তেল, গরম মসলা, মাখন ইত্যাদি এমন তেল এড়িয়ে চলুন, যা হৃদয়ের

স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।

৬.নিয়মিত বাধা দেওয়া উচিত খাবারের মধ্যে খাবার খাওয়া উচিত, যেমন প্রস্তুত খাবার, বেকারি খাবার, চিনি ও মিষ্টি খাবার ইত্যাদি।

মাথা ব্যথার প্রাথমিক চিকিৎসা করণীয়

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button