উপকারিতাশিক্ষা

কাচা বাদাম এর উপকারিতা – খাওয়ার নিয়ম

কাচা বাদাম এর উপকারিতা: কাঁচা বাদাম এর  পুষ্টিগুণ হাড় গঠনে ও মাংসপেশি মজবুত রাখে, মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ও উন্নত করে। ক্যানসার প্রতিরোধে ও ব্লাডসুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

এই কাঁচা বাদামে থাকে ক্যালোরি, প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, ভিটামিন , ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, কপার, ম্যাঙ্গানিজ একাধিক উপকারী উপাদান।

এ কাঁচা বাদামের পুষ্টিগুণ হাড় গঠনে ও মাংসপেশি মজবুত রাখে এবং  মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা উন্নত করে। আবার ক্যানসার প্রতিরোধে ও ব্লাডসুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

এই বাদামের মধ্যে থাকে ভিটামিন ই, ক্যালশিয়াম, সেলেনিয়াম, কপার, ম্যাগনেশিয়াম ও রাইবোফ্ল্যাভিন। এছাড়া থাকে আয়রন, ফোলেট, ভিটামিন বি, জিঙ্ক, নিয়াসিন, ও থায়ামিন।বাদাম আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভাল।

রোজ কতটা পরিমাণ বাদাম খাওয়া উচিত এ প্রসঙ্গে টিপস দিলেন আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞ দীক্ষা ও ভাবসার। যাঁরা নিয়মিত এই ভাবে ব্যায়াম করেন, শরীরে কোনও রোগ তাঁরা দিনে ১০-১৫ টা পর্যন্ত বাদাম খেতে পারেন। এর থেকে একটু বেশি হলে ( এক মুঠো পর্যন্ত) ক্ষতি নেই।

যাঁদের হজমের অসুবিধে আছে, শরীরে কোনও না কোন অসুখ আছে তাঁরা দিনে ৬ টার বেশি না খাওয়া ভাল। বাদাম খাওয়া এর ফলে বদহজম, পেটের সমস্যা, পেট ভার,আবার  ওজন বেড়ে যাওয়া, খিদে কমে যাওয়া এসব হতে পারে। এর কারণ বাদামের মধ্যে ৮০ শতাংশই চর্বি।

কাঁচা ছোলা ও বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

বাদাম এবং ছোলা:

বাদাম: প্রোটিনযুক্ত খাবার এটি। এতে রয়েছে ফ্যাট ও ভিটামিন ই, যাঁদের চুল পড়ে যায় এবং এলোমেলো হয় এবং ত্বক শুষ্ক, তাঁদের জন্য এই  বাদাম ভালো।

ছোলা: প্রোটিনযুক্ত খাবার একটি। খোসাসহ ছোলা বেশি ভালো ও বাদামের তুলনায় এতে ফ্যাট কম রয়েছে। তাই কাঁচা ছোলায় ভিটামিন বি বেশি থাকে এছাড়া আছে ভিটামিন বি-১, বি-২, ফসফরাস এবং  ম্যাগনেসিয়াম। শরীরের জন্য খুব ভালো।

তাই নিয়ম মতন বাদাম ও ছোলা খেলে রক্তচাপ, কোলেস্টেরল, কৃমিনাশক, কোষ্ঠকাঠিন্যের এবং  ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়, স্বাস্থ্য ভাল হবে, হাড় মজবুত হবে, খাবারে রুচি ও আসবে। আবার যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে এর ভূমিকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। এ খাদ্য আঁশ হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

  • অন্যদিকে রোজ বেশি পরিমাণ এটি খেলে শরীরের ওজন বাড়বে।

কাঁচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

বাদামের উপকারিতা : ক্যান্সার থেকে বাঁচায় এই কাজু প্রুনোথোসিনিডিন ফ্লাভোনিওাইডের একটি প্রকার তা ক্যান্সার কোষগুলিকে ক্রমবর্ধমান থেকে ও আটকায়। কাজু বাদাম নিয়মিত ক্যান্সারের থেকে রক্ষা রাখে ।

ক্লান্তিও দূর করে: এই বাদাম শক্তির ভালো উৎস। তাই বাদাম খাওয়ার ফলে দেহে এনার্জি দেয়।তাই  নিয়মিত এই বাদাম খেলে শরীরের ক্লান্তি দূর হয়।

মস্তিষ্কে শক্তিশালী করে: এই কাজু বাদামে এক প্রকার তেল থাকে যা ভিটামিন বি সমৃদ্ধ। এ জন্য এটি একটি শক্তিশালী খাদ্য হিসাবে পরিচিত। এছাড়াও বাদামে রয়েছে ভিটামিন বি, এবং মেমরি শক্তি বৃদ্ধি করে।

বাদামের অপকারিতা

ওজন বাড়াতে ও পারে: বাদামের উপকারিতা এবং অপকারিতা নিবন্ধে বাদামের উপকারিতায় আমরা আগে জেনেছি, উচ্চ প্রোটিন ও ফ্যাট থাকে। 

মাত্রাতিরিক্ত বাদাম খেলে আপনি কিন্তু মোটা হয়ে ও যেতে পারেন। আবার কাঠ বাদাম ওজন কমায় পাশাপাশি বেশি খেলে ওজন বাড়াতে পারে। এছাড়া অন্যান্য বাদাম রয়েছে যা সঠিক মাত্রায় না খেলে ওজন বৃদ্ধিও করতে পারে। এই জনে  নিয়মিত খাবারের তালিকায় বাদাম যোগ করলে সেইটা চার ভাগের এক ভাগ রাখুন।

কাচা বাদাম এর উপকারিতা

বাদামের উপকারিতা: ক্যান্সার থেকে বাঁচায় আবার  কাজু প্রুনোথোসিনিডিন ফ্লাভোনিওাইডের একটি প্রকার ক্যান্সার কোষগুলিকে ক্রমবর্ধমান থেকে আটকায়। এই কাজু বাদাম নিয়মিত ক্যান্সার এর কিছু রূপ থেকে রক্ষা রাখে ।

ক্লান্তি দূর করে: বাদাম শক্তির ভালো একটা  উৎস। তাই বাদাম খাওয়ার ফলে দেহে এনার্জি দেয়। এবং নিয়মিত এই বাদাম খেলে শরীরের ক্লান্তি দূর হয়।

মস্তিষ্কে শক্তিশালী করে: কাজু বাদামে তেল থাকে যা ভিটামিন বি সমৃদ্ধ। এর একটি শক্তিশালী খাদ্য হিসাবে পরিচিত। এছাড়া বাদামে রয়েছে ভিটামিন বি, যা মেমরি শক্তি বৃদ্ধিও করে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ: বাদামে পটাসিয়াম এর পরিমাণ উচ্চ মাত্রায় থাকে ও সোডিয়ামের পরিমাণ কম থাকে। সেইটা  রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। সোডিয়ামের মাত্রা বেশি হলে দেহে রক্তও বৃদ্ধি পায় তখন রক্তচাপ বেড়ে যায়। এক্ষেত্রে নিয়মিত এই বাদাম খাওয়া উপকারি।

কলেস্টেরল কমায়: নিয়মিত বাদাম খাওয়ার এই দ্বারা কলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রিত হয়। বাদাম উচ্চ প্রোটিন সামগ্রী হওয়ার কারণ দ্রুত হজমের শক্তি বাড়ায়। কলেস্টেরলের সমস্যা থেকে ভুগছেন এমন মানুষজন নিয়মিত বাদাম খেতে হবে।

কাচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

যারা নিয়ম মাফিক কাঁচা বাদাম খান, তাদের শরীরে বিভিন্ন ধরন এর  পুষ্টিকর উপাদান প্রবেশ করে। যেমন- কাঁচা বাদামে রয়েছে এই  ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, ওমেগা ৩, আয়রন ও ভিটামিন-ই।

তাই কাঁচা বাদামের পুষ্টিগুণ হাড়ের জোর বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে থাকে । এর পাশাপাশি, মস্তিষ্ক এর  ক্ষমতা বাড়ায় ও ক্যানসারের আশঙ্কা দূরে রাখে।

বাদামের মধ্যে এই  উপস্থিত প্রোটিন আমাদের এই  শরীরে মাংস এর  পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে। তাই যে সকল মানুষ প্রতিনিয়ত শরীরচর্চা করেন তাদের ক্ষেত্রে কাঁচাবাদাম খুব ভাল খাবার।

এ কারণ শরীরচর্চা করার পরবর্তীতে শরীর অনেকটা প্রোটিন এর  প্রয়োজন হয় এবং যে প্রোটিন অনায়াস আপনারা বাদাম থেকে ও পেয়ে যাবেন। যাঁদের হজমের সমস্যা আছে তাঁরা কাঁচা বাদাম টা এড়িয়ে চলুন।

ezgif.com gif maker (2)
ezgif.com gif maker (2)

কাচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

বাদামের উপকারী ও পুষ্টি গুণাগুণ

বাদাম একটি বীজজাতীয় একটা শস্য। পৃথিবীত এর অনেক রকমের বাদাম রয়েছে। সেগুলো এর মধ্যে চিনাবাদাম, কাজুবাদাম, আখরোট, পেস্তা বাদাম,  হিজলি বাদাম বেশি প্রচলিত। এই সকল প্রজাতির বাদাম-ই সবার জন্যও উপকারী।

বাদাম রয়েছে উচ্চ মাত্রার ক্যালরি, স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি এসিড, ওমেগা-সিক্স, প্রোটিন, স্বাস্থ্যকর কার্বোহাইড্রেট, এবং ফাইবার, ভিটামিন-ই, কপার, ক্যালসিয়াম, সেলেনিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, ফাইটিক এসিড, ম্যাঙ্গানিজ সহ বিভিন্ন খনিজ উপাদান এবং  এন্টিঅক্সিডেন্ট।

বাদামের অপকারিতা

দিনে ৪০-৫০ গ্রাম বাদাম খাওয়া স্বাভাবিক সীমা হিসেবে ধরা হয়। এ বেশি খেলে তা অতিরিক্ত হয়ে যায়। এর কোনো খাবারই অতিরিক্ত খাওয়া সুফল বয়ে আনে না, বাদাম তাও তা-ই।

অতিরিক্ত বাদাম খাওয়ার কিছু অপকারী দিক :

  • কাজুবাদাম হাইড্রোক্যানিক এসিড রয়েছে। যেটা অতিরিক্ত গ্রহণে শ্বাসকষ্ট হতে ও পারে।
  • ব্রাজিলিয়ান বাদামে রয়েছে এই সেলেনিয়াম যা অতিরিক্ত গ্রহণে মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটতেও পারে।
  • আখরোটে ওমেগা-থ্রি ও রয়েছে। অতিমাত্রায় খেলে দেহে ওমেগা-থ্রি এবং ওমেগা-সিক্স এর ভারসাম্যহীন সৃষ্টি হয়ে দেহে বিভিন্ন প্রদাহের এমন  ঘটনা ঘটতে পারে।

কাচা বাদাম খাওয়ার নিয়ম

সারাদিন তিনটি ভারী খাবারের মাঝে টুকটাক মুখ চালান এর  জন্য বাদাম খুব ভাল বিকল্প হতে ও পারে। তাই বাদাম কাঁচাই হোক বা শুকনো খোলায় ভাজা বাদামে থাকা স্বাস্থ্যকর ফ্যাট হার্টে এর জন্য বিশেষ উপকারী।

বাদাম খাওয়া ভাল বলে এই যে মুঠো মুঠো বাদাম খেয়ে যাবেন,সেটা  কিন্তু হবে না। প্রতিদিন বাদাম খাওয়ার নির্দিষ্ট পরিমাপ আছে। যেটা বাদামে ফ্যাটের পরিমাণ কত ও সারাদিনে আপনার খাওয়ার তালিকায় কতটা পরিমাণ সেটা ফ্যাট থাকে তা বুঝে বাদাম এর  সংখ্যা নির্ধারণ উচিত।

প্রতিদিন শরীর এর  যতটা পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম প্রয়োজন হয়, শুধুমাত্র কাঠবাদাম খেলে তা পূরণ হয়ে যেতে পারে। শরীর এর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে প্রতিদিন এই চোদ্দটা পর্যন্ত কাঠবাদাম খাওয়া যেতে পারে।

কাচা বাদাম গান লিরিক্স 

এখন আমরা কাঁচা বাদাম গান এর  লিরিক্স দেখব।  যে সকল ব্যক্তিরা কাচা বাদাম গানের লিরিক্স খুঁজছে তারা এখান থেকে কপি করে নিতে পারবেন।  নিচে এই কাচা বাদাম গানের লিরিক্স দেওয়া হল।

  • বাদামবাদাম  দাদা কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইকোবুবু ভাজা বাদাম
  • আমার কাছে আসে শুধু কাঁচা বাদাম।
  • বাদাম আছে ভালো মাথা এর ছিড়া চুল
  • সিটি গোল্ড এর চুড়ি মালা দিয়ে 
  • মোবাইল এর বডি ভাঙা দিয়ে বাদাম।
  • মোবাইল এর বডি গুলো পাঁচ টাকা দাম 
  • পায়ে তোড়া হাত এর  বালা থাকে যদি 
  • সিটি গোল্ড এর  চেন দিয়ে যাবেন
  • তাতে সমান সমান বাদাম পাবেন।
  • বাদামবাদাম দাদা কাচা বাদাম,
  • আমার কাছে নেইকো বুবু ভাজা বাদাম
  • আমার কাছে আছে শুধু কাঁচা বাদাম।

কাচা বাদাম ভাজা বাদাম 

এদিকে কাঁচাবাদাম অত্যন্ত এই পুষ্টিকর। কিন্তু এতে অনেক সময় নানা ভাবে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া থাকতে পারে, টা অসুস্থতার কারণ হতেও পারে।

আর ভাজা বাদামে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিনের পরিমাণ কিছুটা কমে যেতে পারে। এই ছাড়া বাদামে থাকা স্বাস্থ্যকর চর্বি এর  ক্ষতি হতে পারে এবং অ্যাক্রিলামাইড তৈরি হতে পারে। তাই এগুলোর ক্ষতি ক্ষুব বেশি পরিমাণ নয়।

কিন্তু বাদাম ভাজা এর ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে, তাপমাত্রা এবং ভাজার সময়কাল এর ওপরে বাদাম এর পুষ্টিগুণ প্রভাব ফেলতে পারে। বাইর এর  পাওয়া বিভিন্ন ভাজা বাদাম খেয়ে  না এই কাঁচা বাদাম কিন এ সেটিকে হালকা আঁচে ভেজে খাওয়া ও ভালো। আর তেল দিয়ে ভেজে খেলে নারিকেল তেল ব্যবহার করা ও উচিত,তাই পুষ্টির তেমন পার্থক্য হয় না।

কাচা বাদাম ভাজা বাদাম এর গান 

  • বাদামবাদাম, দাদা কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম
  • বাদামবাদাম, দাদা কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম
  • বাদামবাদাম, দাদা, কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম
  • বাদাম আছে ভাল
  • মাথার ছিড়া এই চুল, City Gold-চুড়ি-মালা দিয়ে
  • Mobile-এ body ভাঙা দিয়ে বাদাম
  • Mobile-এbody-গুলো পাঁচ টাকা দাম
  • বাদামবাদাম, দাদা, কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম
  • বাদামবাদাম, দাদা, কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম
  • বাদামবাদাম, দাদা, কাচা  বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম
  • বাদামবাদাম, দাদা, কাচা বাদাম
  • আমার কাছে নেইতো বুবু ভাজা বাদাম

কাচা বাদাম ভিজিয়ে খাওয়ার উপকারিতা

বাদাম খেলে হজমের সমস্যা হয় অনেকের। যেমন পেট ফাঁপা, ফুলে যাওয়ার সমস্যা দেখা যায় কিছু ক্ষেত্রে। সেই জন্য বাদাম ভিজিয়ে খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা।

বাদাম শরীর এর  জন্য উপকারী, এই বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। ভেতর থেকে শক্তি জোগাতে ও শরীর চাঙা রাখতে বাদাম এর জুড়ি মেলা ভার। যারা শরীরচর্চা করেন যে,

তাদের নিয়মিত বাদাম খেতে বলেন এই  পুষ্টিবিদরা। তাই বাদাম খেলে অনেকেরই হজম এর  সমস্যা হয়। সে জন্য বাদাম ভিজিয়ে খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে পুষ্টিবিদ। 

বাদাম থাকা ফেনোলিক যৌগ ট্যানিন সহজে হজম ও হয় না। ফলে বাদাম খেলে অনেকে বদহজমের সমস্যায় ও ভুগে থাকেন। এ ট্যানিন শরীরে প্রোটিন পরিপাক জটিল করে তোলে। এর আগে থেকে ভিজিয়ে রাখলে বাদামে ট্যানিন এর  পরিমাণ কমে যায়।

চিনা বাদাম এর উপকারিতা

পার্কে বা এদিক–সেদিক বেড়াতে বের হলে একটা ঠোঙা চিনাবাদাম হাতে উঠবে সবার। কিন্তু বাড়িতে নিয়মিত চিনাবাদাম কি চলে? অনেকের উত্তর হবে, না। অথচ অন্য অনেক খাবারের চেয়ে চিনাবাদাম এর  পুষ্টিগুণ ও উপকারিতা বেশি। দৈনিক এমুঠো বা ৩০ গ্রাম বাদাম ওজন কমায়, হৃদ্রোগ নিয়ন্ত্রণ রাখে, স্মৃতিশক্তি বাড়ায় এবং রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে।

চিনাবাদাম মনো আনস্যাচুরেটেড ও পলি আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট নাম এর  দুই ধরনের চর্বি বা স্নেহ জাতীয় পদার্থ রয়েছে, তা কোলেস্টেরল কমায়। এ ছাড়া এতে অনেক  বিভিন্ন ভিটামিনজাতীয় পদার্থ যেমন থায়ামিন, রিবোফ্লোবিন, নিয়াসিন,

ভিটামিন বি-৬ ও ফোলেট রয়েছে আবার  প্রচুর পরিমাণে। পাশাপাশি তাই এতে বিভিন্ন খনিজ পদার্থ ক্যালসিয়াম, লোহা, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম এবং দস্তা রয়েছে।

ভেজা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

বাদামের মধ্যে থাকে এই  ভিটামিন ই, ক্যালশিয়াম, সেলেনিয়াম, কপার, ম্যাগনেশিয়াম ও রাইবোফ্ল্যাভিন। এছাড়াও থাকে আয়রন, ফোলেট, ভিটামিন বি, জিঙ্ক, নিয়াসিন, থায়ামিন। তাই বাদাম আমাদের স্বাস্থ্য এর  জন্য খুব ভাল।

বাদাম খাওয়ার ভালো  সময় হল সকালের দিকে ও সন্ধ্যেবেলা। সকাল থেকে  খালি পেটে ভেজানো বাদাম সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর তাই বলে মনে করেন পুষ্টিবিদরা। আবার সন্ধ্যের জলখাবারেও রাখতে পারেন বাদাম। আমন্ড হোক ও চিনাবাদাম সেটা অন্তত ৬-৮ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখার পর সেটা খাবেন।

কাঁচা বাদাম শরীরের জন্য একেবারে ভাল নয়। ভেজানো বাদাম এর  মধ্যে থাকা উষ্ণতা কম থাকে।তাই ফাইটিক অ্যাসিডের পরিমাণও কমে যায়।

এই কারণে শরীর থেকে পুষ্টি শোষণ করা অনেক সহজও হয়ে যায়। যদি বাদাম ভেজাতে ভুলে ও যান তাহলে অবশ্য ড্রাই রোস্ট করবেন। কিন্তু কাঁচা কোন অবস্থাতে খাবেন না।

সকালে কাঁচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা
সকালে কাঁচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

সকালে কাঁচা বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

বাদাম শরীরের জন্য উপকারী বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তাই ভেতর থেকে শক্তি জোগাতে ও শরীর চাঙা রাখতে বাদাম এর জুড়ি মেলা ভার। যারা শরীরচর্চা করেন যারা, তাদের নিয়মিত বাদাম খেতে বলেন এই  পুষ্টিবিদরা। তবে বাদাম খেলে অনেকের হজমের সমস্যা হয়। সেই জন্য বাদাম ভিজিয়ে খাওয়ার পরামর্শ ও দেন পুষ্টিবিদরা।

কাঠবাদাম এর মতো এমন কিছু বাদাম আছে যেগুলো অনেক বেশ শক্ত হয়। পরিপাকে সহজও হয় না। তাই ভিজিয়ে রাখলে কাঠবাদামগুলো অনেক সুন্দর নরম হয়ে যায়।এই জন্যে  সহজে ভাঙতে পারা যায়। হজম করতে  অসুবিধা হয় না।

সব বাদাম বেশিক্ষণ ভেজানো এর  দরকার পড়ে না। কাঠবাদাম খাওয়ার আগে প্রায় ১২ ঘণ্টা ভেজানো উচিত। তাই  আখরোট, পাইন নাট বা হেজেল নাট প্রায়  ৮ ঘণ্টা ভেজালেই যথেষ্ট। এই কাজুবাদামের ক্ষেত্রে ৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখলে যথেষ্ট।

কাঁচা বাদাম শরীর এর জন্য একেবারেই ভাল নয়। ভেজানো বাদাম এর  মধ্যে থাকা উষ্ণতা কম থাকে। তাই ফাইটিক অ্যাসিডের পরিমাণ কমে যায়। এই কারণে শরীর থেকে পুষ্টি শোষণ করা অনেক সহজ ও হয়ে যায়। যদি বাদাম ভেজাতে ভুলে যান এই জন্যে তাহলে অবশ্য ড্রাই রোস্ট করবেন। কিন্তু কাঁচা কোন অবস্থাতে খাবেন না।

বাদাম খাওয়ার আদর্শ সময় হল সকাল এর  দিকে বা সন্ধ্যেবেলা। সকালে শুধু খালি পেটে ভেজানো বাদাম সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর তাই  বলে মনে করেন পুষ্টিবিদরা। সন্ধ্য এর জল খাবারে রাখতে পারেন বাদামক। আমন্ড হোক ও চিনাবাদাম সেটা অন্তত প্রায় ৬-৮ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখার পর খাবেন।

আরো পড়ুন: কাতিলা গাম এর উপকারিতা

চিনা বাদাম কখন খাওয়া ভালো?

প্রতিদিন একমুঠো চিনা বাদাম খেতে পারেন শরীর এর  কোলেস্টেরল কমাতে। রাতে প্রায় ১০-১৫ টি বাদাম জলে ভিজিয়ে রেখে সকালে খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ ও থাকে। তাই চিনা বাদামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ডায়াবেটিস নির্মূল বিশেষ কার্যকরী।

কি বাদাম খেলে ওজন বাড়ে?

মিল শেইক বা বাদাম শেইক খেলে অবশ্য ওজন বাড়ে। তাই আপনি যদি ওজন বাড়াতে চান এবং সঙ্গে শরীরকে মজবুত রাখতে চান, এই জন্যে এইসব খান: প্রতিদিন সকালে বাদাম, ছোলা ও কিসমিস খান।

কাঁচা বাদাম খেলে কি হয়?

এই কাঁচা বাদামের পুষ্টিগুণ হাড় গঠনে ও মাংসপেশি মজবুত রাখে এবং  মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা উন্নত করে। এই জন্যে ক্যানসার প্রতিরোধে ও ব্লাডসুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্যও করে।তাই কাঁচা বাদামে থাকে ক্যালোরি, প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, ভিটামিন ই, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস,এবং কপার, ম্যাঙ্গানিজ সহ অনেক  একাধিক উপকারী উপাদান।

কাচা বাদাম এ কি ভিটামিন আছে?

আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য বাদাম খুব উপকারী। প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ই, ফাইবার, সেলেনিয়াম, ভিটামিন সি, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ও অ্যামাইনো অ্যাসিড, পটাশিয়াম ও ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড সহ কত কী যে আছে যে, টা নানাভাবে শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং শরীর সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

কাঁচা বাদাম খাওয়া কি ক্ষতিকর?

গবেষকরা দেখেছেন যে, যারা নিয়মিত কাঁচা বাদাম খেয়েও থাকেন, তাদের শরীর এর  নানা পুষ্টিকর উপাদান প্রবেশ করে। তার এই  প্রভাবে বাড়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। তাই কাঁচা বাদামের পুষ্টিগুণ হাড়ের জোর বাড়ায়। আবার পাশাপাশি, মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ায়, ক্যানসার এর  আশঙ্কাও দূরে রাখে।

কোন বাদাম কাঁচা খাওয়া যাবে না?

এদিকে কাঁচাবাদাম অত্যন্ত খুবই পুষ্টিকর। কিন্তু  অনেক সময় ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া থাকতে পারে, তা আমাদের অসুস্থতার কারণ হতে পারে।

চিনা বাদাম কখন খাওয়া ভালো?

প্রতিদিন একমুঠো চিনা বাদাম খেতে পারেন শরীর এর কোলেস্টেরল কমাতে। রাতে প্রায় ১০-১৫ টি বাদাম জলে ভিজিয়ে রেখে আবার সকালে খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।তাই চিনা বাদামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ডায়াবেটিস নির্মূলে বিশেষ কার্যকরী।

কি বাদাম খেলে ওজন বাড়ে?

মিল শেইক বা বাদাম শেইক খেলে অবশ্য ওজন বাড়ে। তবে আপনি যদি ওজন বাড়াতে চান এবং সঙ্গে শরীরকে মজবুত রাখতে চান, এইসব খান: প্রতিদিন সকালে বাদাম, ছোলা ও কিসমিস খান।

কাচা বাদাম খেলে শরীরের কি উপকার হয়?

কাঁচা বাদামের পুষ্টিগুণ হাড় গঠনে এবং মাংসপেশি মজবুত রাখে, মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ও উন্নত করে। ক্যানসাএর প্রতিরোধে ও ব্লাডসুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তাই কাঁচা বাদামে থাকে ক্যালোরি, প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, ও ভিটামিন ই, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, কপার,এবং  ম্যাঙ্গানিজ একাধিক উপকারী উপাদান।

বাদাম কখন খেতে হবে?

সকালে শুধু খালি পেটে ভেজানো বাদাম সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর হিসেবে বলে মনে করেন পুষ্টিবিদরা। তাই সন্ধ্যের জলখাবারেও রাখতে পারেন বাদাম ।তাই  আমন্ড হোক ও চিনাবাদাম সেটা অন্তত প্রায় ৬-৮ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখার পর খাবেন। তাই কাঁচা বাদাম শরীরের জন্য একেবারে ভাল নয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button